নিউ ইয়র্ক টাইমস-এ বাংলাদেশের করোনা জালিয়াতির খবর

0
244

বাংলাদেশে করোনা পরীক্ষা নিয়ে জালিয়াতির খবর গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী গণমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস। 

পত্রিকার শিরোনাম- ‘বিগ বিজনেস ইন বাংলাদেশ: ‍সেলিং ফেইক করোনাভাইরাস সার্টিফিকেট’।  প্রতিবেদনে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রতারকের তকমা পাওয়া মোহাম্মদ সাহেদকে গ্রেপ্তারের পাশাপাশি করোনা পরীক্ষা না করেই ফলাফল দেয়ার প্রতারণা  বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। সাহেদ যে আগেও নানা রকমের অপরাধে জড়িত ছিলেন তাও উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে।

এতে নাম উল্লেখ না করলেও জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরীনা ও সিইও আরিফ চৌধুরীর একই রকম প্রতারণার ঘটনাও উঠে এসেছে।  ইতালি প্রবাসী বাংলাদেশিরা নিউ ইয়র্ক টাইমসের সাংবাদিকদের জানিয়েছেন কাজে ফিরে যেতে হলে তাদের নিয়োগ কর্তারা করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট চেয়েছেন। তবে, কেউ জাল করোনা সার্টিফিকেট নিয়ে ইতালিতে যায়নি বলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যে বিবৃতি দিয়েছে সেটিও জানানো হয়েছে প্রতিবেদনে।

প্রসঙ্গত, বুধবার (১৫ জুলাই) সকালে বোরকা পরিহিত অবস্থায় ছদ্মবেশে ভারতে পালানোর সময় সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত থেকে সাহেদকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়। ঢাকায় এনে তাকে নিয়ে অভিযান চালানো হয় উত্তরায় তার গোপন কার্যালয়ে। এ সময় বেশকিছু জাল টাকা উদ্ধার করা হয়।

গত ৬ই জুলাই, নানা অভিযোগের ভিত্তিতে রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এরপর অভিযোগের সত্যতা মেলায় রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা সিলগালা করে দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদসহ ১৭ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়। এ সময় ৮ জনকে আটক করা হলেও চেয়ারম্যানসহ ৯ জন পলাতক ছিলেন। পরে মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) রিজেন্টের এমডি মাসুদ পারভেজকে গাজীপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর একদিন পর বুধবার (১৫ জুলাই) ভোরে ছদ্মবেশে ভারতে পালানোর সময় সাতক্ষীরার দেবহাটা গ্রেপ্তার হন মোহাম্মদ সাহেদ।   

LEAVE A REPLY