যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় ৩ শতাধিক বাংলাদেশির মৃত্যু

0
158

যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় এখন পর্যন্ত অন্তত ৩০০ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় অনেকে আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে নিউইয়র্ক প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে আবারও করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নিউইয়র্কে সম্প্রতি তিন বাংলাদেশি মারা গেছেন। এর মধ্যে নিউইয়র্কে দু’জনের মৃত্যু হয়। অন্যজন ভাগনির বিয়েতে যোগ দিতে বাংলাদেশে গিয়ে সেখানেই মারা যান। তারা হলেন গোলাম রহমান সেলিম (৪৬), আবুল কালাম আজাদ (৬৮) ও শেফালি বেগম (৫৫)।

বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মেহরাজের ছোট ভাই আবাসন ব্যবসায়ী গোলাম রহমান সেলিম (৪৬) করোনায় আক্রান্ত হয়ে নিউইয়র্কের অ্যাস্টোরিয়ার মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন গত ১৩ নভেম্বর। চিকিৎসকেরা সর্বাত্মক চেষ্টা করেও তাকে শেষ পর্যন্ত বাঁচাতে পারেননি। ২ ডিসেম্বর সকালে তিনি হাসপাতালেই মারা যান বলে জানান গোলাম মেহরাজ। গোলাম রহমান স্ত্রী ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার মারা যান নিউইয়র্কের আরেক প্রবাসী শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ (৬৮)। তিনি লং আইল্যান্ডের জুইশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার পরিবারের অন্য সদস্যরাও করোনায় আক্রান্ত বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে ভাগনির বিয়ে উপলক্ষে বাংলাদেশে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন নিউইয়র্ক নগরের জ্যাকসন হাইটস সংলগ্ন এলমহার্স্টের বাসিন্দা শেফালি বেগম (৫৫)। সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশারের ছোট বোন শেফালি গত ১২ অক্টোবর ঢাকায় গিয়েছিলেন তার বড় মেয়েসহ।

২০ নভেম্বর তার ভাগনির আকদ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই ভাগনি ও বরপক্ষের লোকজন করোনায় আক্রান্ত হন। ফলে বিয়ে স্থগিত হয়। গত ১০ নভেম্বর শেফালি বেগমও করোনা আক্রান্ত হন। এরপর তাকে ঢাকায় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি গত ২৯ নভেম্বর মারা যান। শেফালি বেগমের আরেক মেয়ে ও একমাত্র ছেলে নিউইয়র্কেই থাকেন।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে নিউইয়র্কের বিভিন্ন হাসপাতালে শতাধিক বাংলাদেশি চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া করোনা টেস্টে পজিটিভ রেজাল্ট পাওয়া সহস্রাধিক প্রবাসী চিকিৎসকের পরামর্শে বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

LEAVE A REPLY