বাংলাদেশ বিমানে আবুধাবি যাওয়ার ভাড়া ১ লাখ ৩৯ হাজার টাকা! মিলছে না টিকেট

0
1935

এটাও সম্ভব ! চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা হয়ে আবুধাবি যেতে বাংলাদেশ বিমানের বিজনেস শ্রেণিতে ভাড়া উঠেছে এক লাখ ৩৯ হাজার টাকা। আসা-যাওয়া নয়; শুধুমাত্র ঢাকা-আবুধাবি যাওয়ার এই ভাড়া সর্বোচ্চ রেকর্ড ছুঁয়েছে। স্বাভাবিক সময়ে আসা ও যাওয়া মিলিয়ে এই রুটের ভাড়া ইকোনমি শ্রেণিতে ৪০ হাজার টাকা; এখন সেটি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮০ হাজার টাকা, তাও শুধুমাত্র যাওয়ার ভাড়া। কোভিড-১৯ মহামারিতে যাত্রী চাহিদার তুলনায় টিকেটের সংখ্যা একেবারে নগন্য হওয়ায় ভাড়া আকাশ ছুঁয়েছে। খবর কালের কন্ঠ

গত মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত এই দামে টিকেট বিক্রি হলেও বুধবার থেকে এই দামেও টিকেট মিলছে না। এতে হাজার হাজার প্রবাসী বাংলাদেশিরা চট্টগ্রাম বিমান বাংলাদেশের জেলা অফিসে ভিড় জমিয়েছেন। টিকেট না পেয়ে ভাঙচুর করেছেন, অনেকে প্রবাসী হতাশা নিয়ে ফেরত গেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আবুধাবি প্রবাসী আবু বকর বলেন, ফেব্রুয়ারিতে ছুটিতে দেশে এসে করোনার কারণে আটকা পড়েছিলাম। আগামী ২০ আগস্টের মধ্যে আমাকে আবুধাবিতে ঢুকতেই হবে; তা না হলে চাকরিতে ব্যাপক জটিলতায় পড়ে যাব। আমার ফিরতি টিকেট ক্রয় করা ছিল। গত মঙ্গলবার বিকালে বিমান ওয়েবসাইটে ২৫ আগস্ট পর্যন্ত সব টিকেট বিক্রি দেখানো হচ্ছিল। আর ২৬ আগস্টের টিকেট বিক্রি হয় যাওয়ার ভাড়া ১ লাখ ৬ হাজার টাকা। রাতে সেটি দেখানো হয় ১ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। ভাড়া দেখে তো চোখ আমার ছানাবড়া।

পরে আমার কাছে থাকা টিকেটের তারিখ পরিবর্তন করতে বুধবার সকালে চট্টগ্রাম বিমান অফিসে গেলে দেখি শত শত প্রবাসীর ভিড়। পরে জানতে পারি ৩১ আগস্ট পর্যন্ত আবুধাবির কোনো টিকেট নেই বিমানের। এখন বড় ধরনের দুশ্চিন্তায় পড়লাম- যোগ করে তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেশ ক’দিন ধরেই চট্টগ্রাম বিমান অফিসে আবুধাবি ও দুবাই রুটে টিকেটের জন্য ভিড় ছিল। বুধবার সকালে সেটি চরম আকার ধারণ করে। শত শত প্রবাসী বাংলাদেশি তাদের টিকেট কেনার জন্য; আবার অনেকেই তাদের টিকেট তারিখ পরিবর্তনের জন্য ভিড় জমান। টিকেট না পেয়ে ক্ষুদ্ধ হয়ে অফিসের জানালা ভাঙচুর করেন, পরে বিক্ষোভ করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিমান অফিসে নিরাপত্তার জন্য পুলিশ নিয়োগ করা হয়।

এত বেশি বাড়ার বিষয়ে জানতে অসংখ্যবার ফোন করা হলে অফিসিয়াল নম্বরটি কৌশলে ব্যস্ত রেখেছেন চট্টগ্রাম জেলা বিমান অফিসের ম্যানেজার আকতারুজ্জামান। পরে বাংলাদেশ বিমানের উপমহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকারকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, দুবাই-আবুধাবি রুটে ফ্লাইট বাড়ানোর বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। এছাড়া ভাড়া বেড়ে যাওয়ার বিষয়ে মার্কেটিং বিভাগ ভালো বলতে পারবে। তারা তথ্য দিলে আমি বলতে পারব।

জানা গেছে, কোভিড-১৯ মহামারিতে আটকে পড়া প্রবাসীদের জন্য প্রথম ফ্লাইট চালু করে বাংলাদেশ বিমান। গত জুলাই থেকেই অনিয়মিতভাবে ফ্লাইট চালু হয়। পরে সেটি আবার নিয়মিত করা হয়। এখন সপ্তাহে চারটি আবুধাবি ও চারটি দুবাই ফ্লাইট পরিচালনা করছে বাংলাদেশ বিমান। তবে কোনো ফ্লাইট চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি যাচ্ছে না; সব ফ্লাইট ঢাকা থেকেই যাচ্ছে। তবে চট্টগ্রামের যাত্রীদের চট্টগ্রাম শাহ আমানত আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন সম্পন্ন হচ্ছে।

এদিকে হাজার হাজার সংযুক্ত আরব আমিরাতে থাকা প্রবাসীদের জন্য সপ্তাহে আটটি ফ্লাইট খুবই সামান্য। যদিও গত মঙ্গলবার থেকে ফ্লাই দুবাই ঢাকা থেকে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে চট্টগ্রামের অধিবাসীর সংখ্যা সবচে বেশি। ফলে চট্টগ্রাম থেকে পৃথক এবং প্রতিদিন ফ্লাইট শুরু করাটা এখন জরুরি হয়ে পড়েছে। 

হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ চট্টগ্রাম চেয়ারম্যান শাহ আলম বলেন, করোনার কারণে অন্তত ৪০ হাজার প্রবাসী আটকা পড়েছেন দেশে। তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে ; তাই নিজের সম্পদ বিক্রি করে দ্রুত নিজ প্রবাস কর্মস্থলে ফিরতে চাইছেন। এজন্য জরুরিভিত্তিতে বাড়তি ফ্লাইট এবং চট্টগ্রাম থেকে পৃথক ফ্লাইট চালু না করাটা খুবই অমানবিক হবে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম-দুবাই রুটে স্বাভাবিক সময়ে আসা ও যাওয়ার ভাড়া ৪০ হাজার টাকা। এখন সেই ভাড়া ইকোনমি শ্রেণিতে সর্বোচ্চ ৮০ হাজার টাকা; তা-ও শুধুমাত্র যাওয়ার ভাড়া। আর বিজনেস ক্লাসে ভাড়া সর্বোচ্চ ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে; যা আগে ছিল ৯৫ থেকে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা। প্রবাসীদের জন্য ভাড়াও নাগালের মধ্যে রাখাও জরুরি।

উল্লেখ্য, কভিড-১৯ মহামারির সময়ে আবুধাবি ও দুবাই রুটে এতদিন একচেটিয়া ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ বিমান। তবে গত সপ্তাহ থেকে এয়ার অ্যারাবিয়া সপ্তাহে দুই দিন ঢাকা-আবুধাবি, সপ্তাহে চার দিন ঢাকা-শারজাহ রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। এছাড়া ফ্লাই দুবাই সপ্তাহে দুই দিন ঢাকা-দুবাই ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

LEAVE A REPLY